শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৯:০৬ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ
সরকারকে অসহযোগিতা করার অভিযোগ ছাতক পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে ভক্তদের কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন কিংবদন্তি ফুটবলার বিদ্যালয়ের জায়গা জোরপূর্বক দখল ও চারা রোপন কৈতক ট্রমা সেন্টার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন এমপি মানিক ছাতকে কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণী সম্পন্ন জমির খাজনা অনলাইনে ছাতক উত্তর সুরমা প্রবাসী কল্যাণ সোসাইটির অাত্মপ্রকাশ ছাতকে অানুষ্টানিক ভাবে উদ্বোধন হলো খাঁজা ট্রাভেলস যদি আমাকে ভালোবাসিস, তবে সুরা ইয়াসিন পড়ে দোয়া করিস সুনামগঞ্জ জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত তাহিরপুরে পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ তাহিরপুরে মাদ্রাসায় নিয়োগে অনিয়ম- ৩০ লক্ষ টাকা ঘুষের অভিযোগ  দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী অফিসার করোনায় আক্রান্ত সুনামগঞ্জের দোযারাবাজারে ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক আটক(১) সাংবাদিক আরিফুর রহমানের পিতার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ
টাকায় কেন লেখা থাকে ‘চাহিবামাত্র ইহার বাহককে দিতে বাধ্য থাকিবে’

টাকায় কেন লেখা থাকে ‘চাহিবামাত্র ইহার বাহককে দিতে বাধ্য থাকিবে’

শেয়ার করুনঃ

 

ওয়াসিকা রহমান পারিসা :: আমরা কি কখনো জানার জন্য চেষ্টা করেছি কি?

যখন থেকে টাকা নিজের হাতে রাখতে শিখেছি সেদিন থেকেই মনে একটা প্রশ্ন ডানা মেলে। প্রশ্নটা হলো – ‘‘চাহিবামাত্র ইহার বাহককে দিতে বাধ্য থাকিবে’’ ।এই লেখাটি যতোই দেখতাম মনের মাঝে ততটা গভীর ভাবেই প্রশ্নটা গেঁথে যেতো! কেনো লেখা থাকে কথাটা, পরে একদিন এইটা নিয়ে খুব ঘাটাঘাটি করি কারণটা আমাকে জানতেই হবে। পরে একটি জায়গায় আমি একটি লেখা পড়ি তখন বুঝতে পারলাম যে কেনো লেখা থাকে। তারপর ভাবলাম শুধু আমি জানলেই তো হবেনা সবার জানা দরকার। টাকার গায়ে এই কথাটি সবাই লক্ষ্য করে থাকবেন। কিন্তু কখনো চিন্তা করেছেন কি, কেন টাকার নোটে লেখা থাকে চাহিবামাত্র ইহার বাহককে ২০/৫০/১০০/৫০০/১০০০ টাকা দিতে বাধ্য থাকিবে?

এই প্রশ্নের উত্তর খুব সোজা। এজন্য আপনাকে অর্থনীতিবিদ হতে হবে না। তবে জানতে হবে এর পেছনের কথা।

আমরা জানি বাংলাদেশের মুদ্রা ছাপার একমাত্র প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু কথা হলো এই মুদ্রা আসলে কী? মুদ্রা বলতে কী বোঝায় সেই সম্পর্কে একটু ধারনা রাখা ভালো।

মুদ্রা হলো বিনিময়ের মাধ্যম। যার মাধ্যমে আমরা কোনো কিছু ক্রয় বা বিক্রয় করতে পারি।
বাংলাদেশের সরকারি মুদ্রা হলো ৩ টি। ১, ২, ৫ টাকার নোট কিংবা কয়েন হলো সরকারি মুদ্রা আর বাকিগুলো হলো সমপরিমাণ টাকার বিনিময়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক ছাপানো বিল অব এক্সচেঞ্জ।

বাংলাদেশ ব্যাংক টাকার বিপরীতে নোট ছাপে। তাই এটা বাংলাদেশের জনগণের কাছে বাংলাদেশ ব্যাংকের দায়।

মনে করুন, আপনি কোন কারণে ব্যাংক নোটের উপরে আস্থা রাখতে পারছেন না। তাই আপনি ১০০ টাকার একটি নোট বাংলাদেশ ব্যাংক কাউন্টারে জমা দিয়ে বিনিময় চাইলেন। বাংলাদেশ ব্যাংক চাহিবামাত্র এর বাহককে অর্থাৎ আপনাকে সমপরিমাণ ১, ২, ৫ টাকা প্রদান করে দায় থেকে মুক্তি হবে। এই হচ্ছে মূল বিষয়।

আরেকটু ব্যাখ্যা করা যাক। বাংলাদেশ ব্যাংক যখন কোন নোট বাজারে ছাড়ে তখনই সমপরিমাণ ১,২, ৫ টাকার নোট বা কয়েন সরকারি অ্যাকাউন্ট থেকে নিজের অ্যাকাউন্টে নিয়ে নেয়। আবার যখন ১,২, ৫ টাকা মার্কেটে ছাড়ে তখনই সমপরিমাণ নোট সরকারি অ্যাকাউন্টে জমা দেয়। অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংক সরকারের নিকট থেকে টাকা নিয়ে টাকা ছাড়ে। সে হিসেবে মার্কেটে যত টাকার নোট আছে ঠিক সমপরিমাণ টাকা (১ ও ২) বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রক্ষিত আছে। সুতরাং সব নোট ব্যাংকে জমা করলেও ১,২, ৫ টাকার কয়েন/ নোট দিতে পারবে বাংলাদেশ ব্যাংক।

১,২,৫ টাকা হলো টাকা, বাকিগুলো বিল অব এক্সচেঞ্জ Bill of Exchange. আর এজন্য এই নোটে লেখা থাকে না ‘চাহিবামাত্র ইহার বাহককে দিতে বাধ্য থাকিবে’। বাকি নোটগুলোয় ঠিকই লেখা থাকে।..

প্রত্যেকটা ব্যাংকের নোট ইস্যু করে স্বর্ণ মুদ্রার বিপরীতে।
যত টাকা নোট ইস্যু করা হবে ঠিক তত স্বর্ণ বা অন্যান্য আর্থিক সম্পদ বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে সংরক্ষণ করা থাকবে।
চাহিবামাত্র ইহার বাহককে দিতে বাধ্য থাকিবে এই কথার মানে হলো
আপনি যদি বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আপনার নোট নিয়ে যান তাহলে বাংলাদেশ ব্যাংক আপনার নোট এর বিপরীতে সমপরিমাণ স্বর্ণ বা আর্থিক সম্পদ দিতে বাধ্য থাকিবে।

শেয়ার করুন

Sylhet24Live.Com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।
Design & Developed BY POS Digital